• চাণক্য বাংলা

উত্তরবঙ্গের করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে, সন্তোষ প্রকাশ মমতার



চানক্য বাংলা ওয়েব ডেস্ক : প্রশাসনিক কর্তাদের কাজে ঢিলেমি না দেওয়ার বার্তা


উত্তরবঙ্গের করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে।’ মঙ্গলবার 'উত্তরকন্যা'য় প্রশাসনিক বৈঠক থেকে এমনটাই বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর জন্য উত্তরবঙ্গের আশা কর্মী ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসাও করেন এবং পুলিশকর্মীদের আরও সাবধানে কাজ করার পরামর্শ দেন তিনি। একইসঙ্গে পুজো এলেও করোনা সতর্কতায় কোনওরকম ঢিলেমি না করার বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি জনস্বার্থে প্রশাসনিক আধিকারিকদের 'ইট মাথায় করে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

দীর্ঘ সাত মাস পর উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গে গিয়েই এদিন আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ির আধিকারিকদের নিয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে বসেন তিনি। একদিকে মহামারী চলছে, অন্যদিকে শিয়রে বিধানসভা ভোট। এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার এই সফর এবং প্রশাসনিক বৈঠক যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই এই বৈঠক থেকেই কোভিড সতর্কতা জারি করার পাশাপাশি পড়ে থাকা কাজগুলি অবিলম্বে সম্পন্ন করার ব্যাপারে প্রশাসনিক আধিকারিকদের নির্দেশ দেন তিনি।

বৈঠকের শুরুতেই উত্তরবঙ্গের কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশের পাশাপাশি দুর্গাপুজোয় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনের বার্তা দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'পুজো আসছে, কিন্তু সেই কারণে কোনওভাবেই করোনাকে অবহেলা করা যাবে না। মৃদু উপসর্গ থাকলেও সেফ হাউজে থাকতে হবে।' এরপরই প্রশাসনিক কর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, 'আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়িতে যে সমস্ত এলাকা এখনও গ্রিন জোন রয়েছে। সেখানে যাতে কোনওভাবে সংক্রমণ না প্রবেশ করতে পারে সেদিকে নজর রাখতে হবে। সমস্ত তথ্য রাখতে হবে জেলাশাসকদের। দিন পিছু কোভিড রিপোর্ট আপডেট করতে হবে। সমগ্র পরিস্থিতির ওপর সর্বদা নজর রাখতে হবে।' প্লাজমা থেরাপি করার পরামর্শও দেন তিনি।

অন্যদিকে, প্রশাসনিক কর্তাদের কাজে ঢিলেমি না দেওয়ার বার্তা দিয়ে মমতা বলেন, '১০০ শতাংশ কাজ চাই, ১০০ শতাংশ অভিযোগের সুরাহা করতে হবে।' করোনা আবহেও যে কাজের গতি থামানো যাবে না, তাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন তিনি। এদিন মুখ্যমন্ত্রী প্রতিটি দফতর ধরে ধরে, প্রতিটি প্রকল্পের অগ্রগতির খোঁজখবর নেন। কোনভাবেই পেনশন, স্কলারশিপ আটকানো যাবে না বলেও সাফ জানিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী। উদ্বাস্তুদের জমি সমস্যা সমাধান থেকে শুরু করে শ্রম দফতরের যেসব কাজ অল্প বাকি আছে, তা এক সপ্তাহের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেন তিনি। প্রয়োজনে প্রশাসনিক কর্তাদের মাঠে নেমে কাজ করার নির্দেশও দিয়েছেন।

আবার টাকা পাওয়া সত্ত্বেও যাঁরাও কাজ করছে না বলে রিপোর্ট পেলেন, তাঁদের আগামী ৩ মাসের মধ্যে কাজ শেষ করার কড়া বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। এপ্রসঙ্গএক প্রশাসনিক কর্তাকে রীতিমত ধমকের সুরে মমতা বলেন, 'ইন্সপেক্টর-রাজ বেশি চলছে, জনস্বার্থে কাজ কম হচ্ছে। আমি সব খোলনলচে পালটে দেব।'