• chanakyabangla

দেশবাসীকে করোনার টিকা দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু করে দিল কেন্দ্র।


দেশবাসীকে করোনার টিকা দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু করে দিল কেন্দ্র, এসএমএসের মাধ্যমে টিকা দেওয়ার স্থান- তারিখ জানতে পারবে জনগণ

চানক্য বাংলা ওয়েব ডেস্ক:

দেশীয় করোনা টিকা 'কোভ্যাকসিন' ফেব্রুয়ারির মধ্যেই বাজারে আসবে বলে আগেই জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। ফলে হাতে এখনও বেশ কিছুটা সময় আছে। কিন্তু এর মধ্যেই নির্বিঘ্নে ৩০ কোটি দেশবাসীকে টিকাকরণ করার প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে কেন্দ্র। একেবারে প্রথমে কাদের টিকা দেওয়া হবে সে ব্যাপারে ইতিমধ্যে বিভিন্ন রাজ্যের থেকে তালিকা নিয়েছে কেন্দ্র। এবার কবে, কোথায় কীভাবে টিকা দেওয়া হবে সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিল সরকার। এসএমএসের মাধ্যমে প্রত্যেক জনগণকে কাছে জানিয়ে দেওয়া হবে, তাঁদের কখন, কোথায় টিকা দেওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে কারা টিকা পাবেন, সেই তালিকা তৈরি করাও শুরু করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে খবর, টিকার জন্য ৪টি গোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। তাঁরা হলেন—

১) চিকিৎসক ছাড়াও নার্স-আশাকর্মী মিলিয়ে অন্তত ১ কোটি স্বাস্থ্যকর্মী। ডাক্তারির পড়ুয়াদেরও এই তালিকায় রাখা হয়েছে।

২) করোনা-যুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে লড়াই করা পুরকর্মী, পুলিশ এবং সেনাকর্মী মিলিয়ে ২ কোটি মানুষ।

৩) ৫০ বছর বেশি বয়সি ২৬ কোটি মানুষকেও প্রাথমিক ভাবে টিকা দেওয়া হবে।

৪) ৫০ বছরের কমবয়সি হওয়া সত্ত্বেও যাঁদের কো-মর্বির্ডিটি রয়েছে, এমন ১ কোটি মানুষকেও প্রাথমিক পর্যায়ে টিকা দেওয়া হবে।

গোটা ব্যবস্থা যাতে সুষ্ঠুভাবে এগোয়, তা দেখতে আগেই রাজ্যগুলিকে টাস্ক ফোর্স গঠন করতে বলেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। ইলেকট্রনিক ভ্যাকসিন ইনটেলিজেন্স নেটওয়ার্ক বা ইভিআইএন-এর মাধ্যমে টিকাকরণের বিষয়টি বাস্তবায়িত করা হবে। কারা টিকা পেলেন, তা দেখতে আধার কার্ডের সাহায্য নেওয়া হবে। তবে টিকার জন্য তা বাধ্যতামূলক নয়। সরকার-নির্দিষ্ট যে কোনও পরিচয়পত্র দেখিয়েই টিকা নিতে পারবেন সাধারণ মানুষ।স্বাস্থ্য কেন্দ্র ছাড়া অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র, স্কুল, পঞ্চায়েত ভবনের মতে জায়গাগুলিতে টিকাকরণ হতে পারে বলেও কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে খবর।