• chanakyabangla

দেশে নতুন সংক্রমণের চেয়ে সুস্থতার হার বেশি, রাজ্যের মধ্যে দৈনিক সংক্রমণের শীর্ষে দিল্লি


চানক্য বাংলা ওয়েব ডেস্ক:

দেশে নতুন সংক্রমণের চেয়ে সুস্থতার হার বেশি, রাজ্যের মধ্যে দৈনিক সংক্রমণের শীর্ষে দিল্লি


দেশে নতুন করে সংক্রমণের থেকে প্রতিদিন সুস্থতার হার বেশি হওয়ায় কমছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। নভেম্বরের শুরুতেই দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫০ হাজারের কাছাকাছি। দেশের রাজ্যগুলির মধ্যে দৈনিক সংক্রমণের হার সবচেয়ে বেশি দিল্লিতে। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে সাড়ে ৭ হাজারের বেশি মানুষ নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৫ হাজার ৯০৩ জন। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ লক্ষ ৫৩ হাজার ৬৫৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৪৯০ জনের। এখনও পর্যন্ত করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১ লক্ষ ২৬ হাজার ৬১১ জন। ভারতে এক তৃতীয়াংশ মৃত্যুই ঘটেছে মহারাষ্ট্রে। দ্বিতীয় এবং তৃতীয়তে রয়েছে কর্নাটক এবং তামিলনাড়ু। তারপর তালিকায় রয়েছে উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লির নাম। পঞ্জাব, গুজরাত, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তীসগঢ়, রাজস্থান, হরিয়ানাতেও মৃত্যুর সংখ্যাও আগের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশে কোভিড আক্রান্তদের মধ্যে এখনও পর্যন্ত মোট ৭৯ লক্ষ ১৭ হাজার ৩৭৩ জন করোনা মুক্ত হয়েছেন। যা গোটা বিশ্বের মধ্যে সর্বোচ্চ। মোট আক্রান্তের সাড়ে ৯২ শতাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে সুস্থ হয়েছেন ৪৮ হাজার ৪০৫ জন। নতুন আক্রান্তের থেকে সুস্থ বেশি হওয়ায় কমছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। এখন দেশে মোট সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৫ লক্ষ ৯ হাজার ৬৭৩ জন।

পশ্চিমবঙ্গের মোট আক্রান্ত এখন ৪ লক্ষ ৫ হাজার ৩১৪। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯২০ জন। করোনা এ রাজ্যে মোট প্রাণ হারিয়েছেন ৭ হাজার ২৯৪ জন। রাজ্যে সাড়ে ৩ লক্ষেরও বেশি কোভিড আক্রান্ত ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ৮ লক্ষ ৩৫ হাজার ৪০১ জনের। যা গত কয়েক দিনের তুলনায় অনেকটাই কম।

উল্লেখ্য, বিশ্বে প্রথম স্থানে থাকা আমেরিকাতে মোট আক্রান্ত ৯৯ লক্ষ ৬২ হাজার। গত কয়েক দিন ধরেই সেখানে দৈনিক সংক্রমণ ১ লক্ষের বেশি। ভারতে মোট মৃত্যুর সংখ্যা এক লক্ষ পেরিয়েছে। তবে ইউরোপ এবং আমেরিকার তুলনায় ভারতে মৃত্যু হার অনেকটাই কম।