• chanakyabangla

নবান্ন অভিযান ঘিরে বিজেপির বিশাল জমায়েতের ফলশ্রুতি! করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে দিলীপ ঘোষ


নবান্ন অভিযান ঘিরে বিজেপির বিশাল জমায়েতের ফলশ্রুতি! করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে দিলীপ ঘোষ

চানক্য বাংলা ওয়েব ডেস্ক:

করোনা সংক্রমণ এড়াতে প্রথম থেকেই মিটিং-মিছিল, জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে এসেছে চিকিৎসক, বিশেষজ্ঞ মহল থেকে শুরু করে সরকার। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষা করেই রাজ্য তথা দেশজুড়ে চলছে মিটিং-মিছিল জমায়েত চলছে। গত সপ্তাহে রাজ্যে বিজেপি নবান্ন অভিযান ঘিরে তো প্রায় সমগ্র দক্ষিণবঙ্গেই ব্যাপক জমায়েত হয়েছিল। তারপর পুলিশ-বিজেপি কর্মীদের ধস্তাধস্তিতে ধুন্ধুমার কান্ড বাধে। আর তারপরই একের পর এক বিজেপি নেতা-কর্মীর করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর আসতে শুরু করে। সেই তালিকা থেকে রেহাই পেলেন না বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও। যিনি রাজ্যে করোনার বাড়বাড়ন্ত নিয়ে প্রথম থেকেই সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন, সেই দিলীপ ঘোষও দলীয় কর্মসূচি নবান্ন অভিযানে সামিল হন এবং পরিণাম হিসাবে নিজেও করোনা আক্রান্ত হলেন। ফলে করোনা সংক্রমণ ঠেকানোর ব্যাপারে দিলীপ ঘোষের দায়িত্ববোধ এবং অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে রাজনৈতিক মহল।

জানা গিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার বিজেপির নবান্ন অভিযান কর্মসূচি ছিল। তার ঠিক দুদিন পর, রবিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের অসুস্থ হওয়ার খবর মেলে। এরপর সোমবার থেকে তিনি সমস্ত কর্মসূচি বাতিল করে বাড়িতে নিজেকে আইসোলেট করেন। তাঁর জ্বর এসেছে বলে শোনা যায়। যদিও চিকিৎসকদের পরামর্শে তখনই তিনি করোনা পরীক্ষা করালেও রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। ফলে তাঁর ভাইরাল ফিভার হয়েছে বলেই মনে করেন চিকিৎসকরা। কিন্তু সেই জ্বরের ওষুধে কাজ না হওয়ায় বৃহস্পতিবার তিনি ফের কোভিড পরীক্ষা করান। শুক্রবার সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপরই তাঁকে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে অবশ্য দিলীপ ঘোষের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। জ্বরও কমেছে।

তবে দিলীপ ঘোষের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসতেই টিপ্পনী কাটতে শুরু করেছেন বিরোধীরা। যিনি রাজ্যে করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বমুখী গ্রাফ নিয়ে প্রথম থেকেই সরকারের সমালোচনায় সরব হয়েছিলেন, তিনি কিভাবে এত বড় জমায়েত সমর্থন করলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে ওয়াকিবহাল মহল। ওই জমায়েতের ফলশ্রুতিতে বিজেপি রাজ্য সভাপতি হাতেনাতে পেলেন বলেই মনে করছে বিরোধী মহল। যদিও দিলীপ ঘোষের একা নন, গত বৃহস্পতিবারের নবান্ন অভিযান কর্মসূচির পরই করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর মেলে রাজ্য বিজেপির আরেক শীর্ষ নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এছাড়া তৃণমূল স্তরের নেতা-কর্মীদেরও আক্রান্ত হওয়ার খবর মিলেছে। সবমিলিয়ে, সেদিনের নবান্ন অভিযান কর্মসূচি এবং সেটি ঘিরে বিশাল জমায়েত যে বিজেপির সঠিক পদক্ষেপ ছিল না তা বলা বাহুল্য।