• chanakyabangla

সরোবরে ছটপুজো হচ্ছে না, পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ দিল না শীর্ষ আদালত


সরোবরে ছটপুজো হচ্ছে না, পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ দিল না শীর্ষ আদালত

চানক্য বাংলা ওয়েব ডেস্ক:

রবীন্দ্র সরোবরের ছটপুজো সংক্রান্ত মামলায় জাতীয় পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ দিল না সুপ্রিম কোর্ট। বরং বিচারপতিরা এদিন স্থগিতাদেশ না দিয়ে মামলার শুনানি ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত পিছিয়ে দিয়েছেন। এদিকে, আগামী ১৯ ও ২০ নভেম্বর ছটপুজো। তাই এবছর পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞা মেনে রবীন্দ্র সরোবরে পুজো করা যাবে না।


উল্লেখ্য, ছটপুজো ব্রতপালনকারীদের ভাবাবেগ যাতে ক্ষুণ্ণ না হয় সেকথা মাথায় রেখে এবছর কোভিড বিধিনিষেধ মেনে সরোবরে পুজো করার অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল রাজ্য। পাশাপাশি পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারির উপর স্থগিতাদেশ চেয়েও পিটিশন দায়ের করেছিল সরকার। সোমবার বিচারপতি নরিম্যানের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার শুনানির কথা ছিল। কিন্তু নরিম্যান উপস্থিত না থাকায় অন্য তিন বিচারপতির ইউ ইউ ললিত, বিনীত শরণ, রবীন্দ্র ভাটের এজলাসে শুনানি হয়। বিচারপতিরা এদিন রায়ে কোনও স্থগিতাদেশ না দিয়ে মামলার শুনানি ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত পিছিয়ে দেন। অর্থাৎ এই বছর ছোটপুজোয় পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞাই বহাল রইল। আগামী ১৯ ও ২০ নভেম্বর, কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে ছটের ব্রত পালন করলেও, রবীন্দ্র সরোবরে পুজো করতে পারবেন না পুণ্যার্থীরা।

প্রসঙ্গত, ছটপুজো নিয়ে এবছর জাতীয় পরিবেশ আদালত ও হাই কোর্ট, দু’দফা বিধিনিষেধ চালু করতে নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। পরিবেশ আদালত সাফ জানিয়েছে, সরোবরে পুজো করা যাবে না। অন্যদিকে তেমনই ছটপুজোয় কোনও শোভাযাত্রা বা বাজি ফাটানো যাবে না বলেও রায় দিয়েছে হাই কোর্ট। বস্তুত দুই রায়কে মান্যতা দিতে গিয়ে কলকাতা পুলিশ ও পুরসভা এবং কেএমডিএ মিলিতভাবে একগুচ্ছ বিধিনিষেধ জারি করেছে। ইতিমধ্যেই কোর্টের নির্দেশ মেনে কেএমডিএ ও রাজ্য সরকার সরোবরের বিকল্প জলাশয়ে ৪৪টি ঘাট তৈরি করে পরিষেবা দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। মাস্কহীন ব্যক্তিদের ঘাটে প্রবেশ নিষেধ। পুরসভার তরফে মাস্ক বিলি করা হবে। ছটপুজোর জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা করে গঙ্গার ১৬টি ঘাট পরিষ্কার পরিছ্ন্ন রেখেছে পুরসভা। এমনকি বন্দরের ১০ নম্বর গেটও পূণ্যার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।